মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম
সিএ রাজিবের অপসারনের দাবীতে মানববন্ধন-প্রতিবাদ সমাবেশ উজিরপুর মডেল থানার এসআই মেহেদী বরিশাল জেলার শ্রেষ্ঠ বিট অফিসার নির্বাচিত বরিশালে মুক্তিযোদ্ধার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন মুক্তিযোদ্ধার কাছে চাঁদা দাবির অভিযোগে ১ জনকে জেলহাজতে প্রেরন বরিশালের সাংবাদিকদের সহযোগিতা চাইলেন নবাগত জেলা প্রশাসক ভাণ্ডারিয়ায় বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা ঝালকাঠির নবাগত জেলা প্রশাসককে প্রেসক্লাবের শুভেচ্ছা বানারীপাড়ার ছাত্রীকে ধর্ষণ, কোচিং সেন্টারের পরিচালক ও শিক্ষক গ্রেফতার ব‌রিশালে ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ফার্মেসিকে জ‌রিমানা বরিশালের বাবুগঞ্জে ডাকাত আতঙ্কে মসজিদে মসজিদে মাইকিং
লালমোহনে, শ্বামীর বিরুদ্ধে তানজিলার সংবাদ সম্মেলন

লালমোহনে, শ্বামীর বিরুদ্ধে তানজিলার সংবাদ সম্মেলন

তানভীর আহমাদ,লালমোহন প্রতিনিধি:

ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলার চরভূতা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড হাজিরহাট নিবাসী হারুনুর রশিদের কন্যা মোসাঃ তানজিলা লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের জানান-গত ১৪ জুন ২০১৮ইং সালে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন লর্ডহাডিঞ্জ ৮নং ওয়ার্ড সৈয়দাবাদ গ্রামের হানিফ মিয়ার ছেলে মোঃ রাজিবের সাথে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক ও উভয় পরিবারের সম্মতিতে আমাদের বিবাহ হয়েছিল ।

বিবাহের সময় রাজিব নিজেকে পুলিশের দারোগা হিসাবে পরিচয় দেয়। বিবাহের সময় আমার পরিবার রাজিবকে ১ভরি ওজনের একটি স্বর্নের চেইন ও ১ টি আংটি দেয়। বিবাহের কিছুদিন পর পুলিশ হেড কোয়ার্টারে রুম বরাদ্ধ পাবে এবং সেখানে টাকা লাগবে বলে আমার পরিবারের কাছে ২ লক্ষ টাকা দাবী করে।

আমার সুখের কথা চিন্তা করে আমার পরিবার রাজিবের হাতে ২ লক্ষ টাকা তুলে দেন। পুলিশ কোয়ার্টার রুম সে বরাদ্ধ পায় এবং আমাকে সেখানে নিয়ে যায়। সেখানে আমি গিয়ে জানতে পারি রাজিব পুলিশের দারোগা নয়, বরং সে পুলিশের বাবুর্চি। তার এমন প্রতারণার পরও সব কিছু মেনে নিয়ে তার সাথে সংসার করি। কিন্তু এবার ওই রুমের আসবাব পত্র লাগবে বলে আবার ও আমার পরিবারের কাছে টাকা দাবি করে রাজিব। টাকা দিতে না পারায় আমার উপর শুরু হয় তার অমানবিক অত্যাচার।

এ ছাড়া ও যে কোন প্রয়ো‍জনে আমার পরিবারের কাছ থেকে সে টাকা দাবি করত। টাকা দিতে না পারলে আমার উপর অত্যাচার করত। যা নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রি‍মনসহ স্থানীয় পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ একাধিকবার মীমাংসার চেষ্টা করা হয়।

কিন্তু কিছুদিন পর আরো কিছু টাকা লাগবে বলে আমাকে জোরপূর্বক আমার বাবার বাড়ী পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু আমার পরিবার কোনো টাকা দিতে না পারায় আমাদের বাড়ীতে এসে আমাকে মারধর করে এবং বলে টাকা না নিয়ে তুই আমার বাড়ীতে আসতে পারবি না। রাজিবের সকল অন্যায় আচরণের সাথে তার পরিবার ও সায় দেয়। আমার পরিবার কোন টাকা দিতে না পারায় আমাকে বাবার বাড়ী ফেলে রেখে কোন খরপাতি না দিয়ে সম্পূর্ণ যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। পরে বাধ্য হয়ে গত ১১ জুলাই ২০১৯ সালে তার মা জাহানারা ও ভাই জিয়াকে আসামি করে ভোলা কোর্টে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রাজিব বলে- মামলা দিয়ে তুই কিছুই করতে পারবি না। আমার ওই মামলা থেকে গত ১৬ মার্চ ২০২০ তারিখে রাজিব তার পরিবার জামিন পায়।

ঐদিন রাতে রাজিব জিয়া ও রাসেলসহ আরো কয়েকজন মিলে আমার বাবার ঘরে এলোপাথাড়ী হামলা ও ভাঙচুর চালায়। এ সময় তারা আমার মা শাহানুর বেগম ও বড় বোন মুক্তাকে মারধোর করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। এই ঘটনাটি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও থানার ওসি সাহেবকে অবগত করেছি। পরদিন ১৭ মার্চ থানায় মামলা দায়ের করতে চাইলে রাজীবদের প্রভাবে থানা মামলা নেয়নি। এদিকে হামলার ঘটনায় বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হয়। পরে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও অশালীন বক্তব্য উপস্থাপন করে সংবাদ সম্মেলন করে রাজিব। যেখানে চরভূতা ইউপি মেম্বার কামাল হোসেনকে জড়িয়ে আমাকে সামাজিক ভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার অশুভ চেষ্টা করা হয়। রাজিব এর অদৃশ্য ক্ষমতা ও অবৈধ টাকার কাছে আমি ও আমার পরিবার অসহায় হয়ে পড়েছি।

গতকাল (২২ মার্চ রো‍ববার) বিকালে লালমোহন প্রেসক্লাবে লিখিত ভাবে তানজিলা তার স্বামী রাজীবের বিরুদ্ধে উপরোক্ত অভিযোগ তুলে ধরেন। অসহায় তানজিলা নিষ্ঠুর স্বামী রাজীবের জুলুমের হাত থেকে বাঁচার জন্য সমাজ ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে । সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন লাল মোহন প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্দুস সাত্তারসহ ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকগন।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




আমাদের ভিজিটর

  • 207,666 জন ভিজিট করেছেন
© All rights reserved © 2019 ajkercrimetimes.com

Design and Developed By Sarjan Faraby