বৃহস্পতিবার, ০৯ Jul ২০২০, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশের করোনার সার্টিফিকেট নিয়ে ‘জালিয়াতির খবর’ ইতালির পত্রিকায় বরিশালে পুলিশ সদস্যদের বাবার মতো আগলে রেখেছেন পুলিশ কমিশনার, মোঃ শাহাবুদ্দিন খান নিখোঁজের ১৮ ঘন্টা পর মাদ্রাসা ছাত্রী আয়শার লাশ উদ্ধার, ৪ জন গ্রেফতার বাতাসে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর প্রমাণ পেয়েছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রিজেন্টে হাসপাতালে চেয়ারম্যান সাহেদের ‘ব্যাংক হিসাব’ তলব বনারীপাড়ায় শেখ হাসিনা সেনানিবাসের উদ্যোগে গর্ভবতী মায়েদের ‘বিনামূল্যে চিকিৎসা’ প্রদান বরিশালে নতুন করে ১১৪ জন করোনায় আক্রান্ত, মোট ৩৬৫১ জন দানবের বাম্পার ফলন হয় কেন? আরিফ আহমেদ মুন্না ! ঢাকা-বরিশাল-পটুয়াখালী সহ দেশের ১৮টি জেলায় ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছেন, আবহাওয়া দপ্তর সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শাহিনের অকাল মৃত্যুতে ক্যাপ্টেন (অবঃ) এম. মোয়াজ্জেম এর শোক ৮০ শতাংশ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীরই উপসর্গ নেই, ব্রিটিশ জরিপ চট্টগ্রামে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে সক্রিয় হয়ে উঠেছে জাল টাকার বাজার জাতকারী ১টি  চক্র, আটক ১ রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ সহ মোট ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা বরিশালের বাবুগঞ্জে এমপি টিপুর ঈদবস্ত্র বিতরণ করলেন জাপা সভাপতি, কিসলু কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে ‘অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা’ গণমাধ্যমের, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যুদ্ধের গতিতে টিকা উন্নয়নে কাজ করছে চীন যুক্তরাষ্ট্রে করোনা পার্টি, আক্রান্ত হলেই মিলবে মোটা অঙ্কের আর্থিক পুরস্কার করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে এলেও সংক্রমণের ভয় নেই, অ্যান্টিবডির চূড়ান্ত ট্রায়াল শুরু বরিশাল শেবাচিমে করোনায় আক্রান্ত হয়ে পুলিশের এসআই’র মৃত্যু বরিশাল বিভাগে নতুন করে ১১৯ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ৩৫৩৭ জন
লাইলাতুল ‘কদর’ আজ রাতে ফেরেশতাগণ প্রত্যেকের বয়স-মৃত্যু-রিজিক লিখে দেন

লাইলাতুল ‘কদর’ আজ রাতে ফেরেশতাগণ প্রত্যেকের বয়স-মৃত্যু-রিজিক লিখে দেন

আজ ‘লাইলাতুল কদর’ মানে হচ্ছে, ‘কদর’-এর রাত’। আর ‘কদর’মানে হচ্ছে, মাহাত্ম ও সম্মান। অর্থাৎ মাহাত্মপূর্ণ রাত্রি ও ‘সম্মানিত রাত্রি’। এ রাতের বিরাট মাহাত্ম ও অপরিসীম মর্যাদার কারণে রাতটিকে ‘লাইলাতুল কদর’ তথা মহিমান্বিত রাত বলা হয়।

এ রাতে পরবর্তী এক বছরের অবধারিত বিধিলিপি ব্যবস্থাপক ও প্রয়োগকারী ফেরেশতাগণের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তাতে প্রত্যেক মানুষের বয়স, মৃ’ত্যু, রিজিক, বৃষ্টি ইত্যাদির মেয়াদ ও পরিমাণ নির্দিষ্ট করে তা সংশ্লিষ্ট ফেরেশতাগণকে লিখে দেওয়া হয়।

মহান আল্লাহতায়ালা মুসলিম উম্মার জন্য হাজার মাসের চেয়েও উত্তম করেছেন লাইলাতুল কদরকে। এ রজনী এত সম্মানিত যে, এক হাজার মাস ইবাদত করলেও যে সওয়াব হতে পারে তার চেয়ে লাইলাতুল কদরের ইবাদতে বেশি সওয়াব পাওয়া যায়। তাই এই রজনীকে পাওয়ার জন্য মন ও দেহের প্রস্তুতির দরকার রয়েছে। নির্দিষ্ট করে শুধু ২৭ রমজানের রাতই শবে কদর হবে তার কোন গ্যারান্টি নেই।

হাদীছে রাসূল (সা.) বলেছেন : ‘তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে শবে কদর তালাশ কর।’ অর্থাৎ রমজান মাসের শেষ দশকের মধ্যে ২১, ২৩, ২৫, ২৭ ও ২৯ তারিখের বেজোড় রাতে শবে কদর হতে পারে।

রাসূল (সাঃ) রমজানের শেষ দশকের বিজোড় রাতে লাইলাতুল কদর পাওয়ার জন্য ইবাদতের কথা বলেছেন। তাই শবেকদর পাওয়ার জন্য আমাদের সর্বচেষ্টা করা উচিত। মুমিন বান্দারা এই রাতটিকে পাওয়ার আশায় মুখিয়ে থাকেন। রমজানের শেষ দশকে তারা ইবাদতের পরিমাণ বাড়িয়ে দেন। প্রথম দুই দশকের চেয়েও শেষ দশকে ইবাদতে মশগুল থাকেন বেশি করে।

লাইলাতুল কদরের ফজিলত অপরিসীম। তাই সারা রাত জাগরণ করে সঠিকভাবে ইবাদত-বন্দেগীতে মনোনিবেশ করা কর্তব্য। বেশি বেশি নফল নামাজ, তাহাজ্জুদ, সালাতুস তাসবিহ, কাজা নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, দান-সাদকা, জিকির-আজকার, তাসবিহ-তাহলিল, তাওবা-ইসতেগফার, দুয়া-দুরূদসহ নফল আমলের প্রতি মনযোগী হওয়া একান্ত জরুরি।

কোরআনুল কারীমে এরশাদ হয়েছে, ‘আমি একে নাযিল করেছি শবে কদরে। শবে কদর সম্পর্কে আপনি কি জানেন? শবে কদর হলো এক হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ। এতে প্রত্যেক কাজের জন্য ফেরেশতাগণ ও রূহ অবতীর্ণ হয় তাদের পালনকর্তার নির্দেশক্রমে। এটা নিরাপত্তা, যা ফজরের উদয় পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। (সূরা আল কাদর : ১-৫)।

শবে কদরে কী করব- রাসূলুল্লাহ (সাঃ) নিজে ‘লাইলাতুল কদর’ লাভ করার জন্য রমজানের শেষ ১০ রাত জাগ্রত থেকে ইবাদতে কাটিয়েছেন এবং উম্মতে মুহাম্মাদীকে ও সারা রাত জেগে ইবাদত-বন্দেগী করার নির্দেশ দিয়েছেন।

রাসূল (সাঃ) বলেন, শবে কদরকে নির্দিষ্ট না করার কারণ হচ্ছে যাতে বান্দা কেবল ১টি রাত জাগরণ ও কিয়াম করেই যেন ক্ষ্যান্ত না হয়ে যায় এবং সেই রাতের ফজিলতের উপর নির্ভর করে অন্য রাতের ইবাদত ত্যাগ করে না বসে। তাই বান্দার উচিত শেষ দশকের কোন রাতকেই কম গুরুত্ব না দেয়া এবং পুরোটাই ইবাদাতের মাধ্যমে শবে কদর অন্বেষণ করা।

হযরত আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, একদা আমি মহানবী রাসূল (সাঃ) কে জিজ্ঞাসা করলাম হে আল্লাহর রাসূল আমি যদি কদরের রাত সম্পর্কে অবহিত হতে পারি তবে আমি কি করব? তখন রাসূল (সাঃ) আমাকে এই দুয়া পাঠ করার জন্য বললেন। ‘আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউউন তুহিব্বুল আফওয়া ফা’ফু আন্নি’। (তিরমিজি, হাদিস নং : ৩৫১)।

 

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 ajkercrimetimes.com
Design By Rana