শুক্রবার, ১০ Jul ২০২০, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক সাহেদের বাবা করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন দেশের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আর নেই মুলাদীতে বসতবাড়িতে ‘হামলা-ভাংচুর-লুট, কুপিয়ে ও টেঁটাবিদ্ধ’ করে জখম ১১ জন মেরিন ড্রাইভ সড়কে ৯০ পিচ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট সহ আটক ১ বড় কর্তা ঘুষ চাইলে আমাকে জানাবেন, আইজিপি বেনজীর আহমেদ করোনা কালে রেস্তোরাঁয় এলো ‘মাস্ক পরোটা’ নেট দুনিয়ায় তোলপাড় সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ বরিশাল মহানগর স্বেচ্ছাসেবকদের কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে প্রেরিত ক্রেস্ট প্রধান ও আলোচনা অনুষ্ঠান বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের ২১৮ জন সদস্য করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, সুস্থ ৮৫ জন করোনা মোকাবিলায় ‘সাহস রাখতে হবে ও স্বাস্থ্যবিধি’ মানতে হবে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্রেডিট কার্ড জালিয়াত চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছেন সিআইডির সাইবার পুলিশ আমরাই চোর ধরি, আমাদেরকেই দোষারোপ করা হয় : সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদারীপুরে এক নববধূকে ‘ধর্ষণের অভিযোগ’ ৩ যুবক গ্রেপ্তার এক গৃহবধূকে ধর্ষণ করে ‘ভিডিও ধারণ’ যুবক আটক খুলনায় আজ থেকে খুলছে দোকান-পাট -মার্কেট-শপিংমল বাংলাদেশের করোনার সার্টিফিকেট নিয়ে ‘জালিয়াতির খবর’ ইতালির পত্রিকায় বরিশালে পুলিশ সদস্যদের বাবার মতো আগলে রেখেছেন পুলিশ কমিশনার, মোঃ শাহাবুদ্দিন খান নিখোঁজের ১৮ ঘন্টা পর মাদ্রাসা ছাত্রী আয়শার লাশ উদ্ধার, ৪ জন গ্রেফতার বাতাসে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর প্রমাণ পেয়েছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রিজেন্টে হাসপাতালে চেয়ারম্যান সাহেদের ‘ব্যাংক হিসাব’ তলব বনারীপাড়ায় শেখ হাসিনা সেনানিবাসের উদ্যোগে গর্ভবতী মায়েদের ‘বিনামূল্যে চিকিৎসা’ প্রদান
ময়মনসিংহে হাজার ছাড়ালো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত

ময়মনসিংহে হাজার ছাড়ালো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত

virus 3d illustration

ময়মনসিংহ বিভাগে হু হু করে বেড়েই চলছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। মরণব্যাধি কোভিড-১৯-এ আক্রান্তের সংখ্যা শনিবার হাজার ছাড়িয়েছে। গত শনিবার করোনাভাইরাসে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরো ৪৪ জন। এই বৃদ্ধির জেরে করোনাভাইরাসে ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, শেরপুর এবং জামালপুরে মোট আক্রান্ত হলেন ১ হাজার ২৭ জন।

এর মধ্যে ৯৬ জন চিকিৎসক, ৯৪ জন নার্স ও স্বাস্থ্য বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারি রয়েছেন ১৮১ জন।

গতকাল (রবিবার) দুপুরে বাংলাদেশ প্রতিদিনের কাছে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ময়মনসিংহ বিভাগের বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক আবুল কাসেম। তিনি জানান, শনিবার বিভাগের ৪১৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪৪ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ১৬ জন ময়মনসিংহ জেলা এবং ২৮ জন জামালপুর জেলার বাসিন্দা।

স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় সূত্র জানায়, বিভাগে করোনা শনাক্ত ১ হাজার ২৭ জনের মধ্যে ময়মনসিংহ জেলার ৪৮৬ জন, জামালপুরের ২৩৬ জন, নেত্রকোনার ২২১ জন ও শেরপুরের ৮৪ জন।
তবে করোনাভাইরাসে যেমন মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন, তেমন সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যাও কম নয়। প্রতিক‚ল পরিস্থিতিতে এটাই যেন আশার আলো। কোভিডে আক্রান্ত হবার পর এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৪১৩ জন।

সূত্রে  জানা গেছে, আক্রান্তদের মধ্যে ৫৮৮ চিকিৎসাধীন রয়েছেন এবং ১৩  জনকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।

 

সূত্রে আরো জানায়, আক্রান্তদের মধ্যে ৫৮৮ চিকিৎসাধীন রয়েছেন এবং ১৩  জনকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪১৩ জন। অপরদিকে করোনায় থাবায় ময়মনসিংহে ৬, নেত্রকোনায় ২, জামালপুরে চার এবং শেরপুরে একজন মারা গেছেন। পহেলা এপ্রিল থেকে এখন পর্যন্ত ১৫ হাজার ২১৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

তবে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যার বিবেচনায় সবার উপরে আছে ময়মনসিংহ জেলা। আর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এখন করোনা সংক্রমণের সবচেয়ে বড় হটস্পট বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। একের পর এক চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের আক্রান্তের ফলে চিকিৎসা সেবাও মুখ থুবড়ে পড়ছে। ২০৬ জন চিকিৎসকের মধ্যে ইতিমধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৬ জন। এছাড়ও ৫৮ জন নার্স এবং আরো ৫৯ জন অন্যান্য স্টাফ আক্রান্ত হয়েছেন। আর ১৩টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১ জন চিকিৎসক, ১৪ জন নার্স ও ৩৩ জন স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন।

অপরদিকে নেত্রকোনায় ৮ জন চিকিৎসকসহ ৩৯ জন, জামালপুরে ২৪ চিকিৎসকসহ ৮১ জন ও শেরপুরে ৭ চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্য বিভাগের ৩০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এমন পরিষংখ্যানে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) ময়মনসিংহ শাখার সভাপতি ডা. মতিউর রহমান ভুঁইয়া উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ‘ময়মনসিংহ মেডিকেলের নতুন ভবনটি দ্রুতই করোনা ডেডিকেটেড উপযোগী করে গড়ে তোলা প্রয়োজন। এতে করে চিকিৎসক এবং চিকিৎসা ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্টরা সংক্রমণের হাত থেকে যেমন রক্ষা পাবে তেমনি সাধারণ মানুষও এর সুফল ভোগ করতে পারবে। ’

অপরদিকে ময়মনসিংহের সিভিল সার্জন ডা. এ বি এম মশিউল জানিয়েছেন, ‘অন্য তিন জেলার চেয়ে ময়মনসিংহ জেলার মানুষ অনেক বেশি। সে হিসাবে আক্রান্তের সংখ্যাও বেশি। নিজেকে সতর্ক রাখার চেয়ে এখন বিকল্প কিছুই নেই। ’

এদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ময়মনসিংহ অঞ্চলে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়লেও সাধারণ মানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না। সারাদিনই সড়ক গুলোতে থাকছে মানুষের ভীড়, নেই সামাজিক দূরত্ব। দেদারছে চলছে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক, রিকশা। এমনকি সিএনজি চালিত অটোরিকশাও যাচ্ছে এক জেলা থেকে অন্য জেলা-উপজেলা পর্যন্ত।

সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 ajkercrimetimes.com
Design By Rana