শুক্রবার, ১৮ Jun ২০২১, ০১:২৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
পানি উন্নয়ন বোর্ড মেডিকেল সেন্টার উদ্বোধন করেন – পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বরিশালে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত করোনা ভাইরাস : লকডাউনে যুক্ত হলো নতুন যেসব নির্দেশনা ভয়াবহ আগুনে পুড়ে ছাই রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির বরিশালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ২ জনের মৃত্যু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বল্প উন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পদার্পন করেছে – জাহিদ ফারুক শামীম বরিশালে শান্তিপূর্ণ নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু নির্বাচন করতে প্রশাসনকে নির্দেশ- সিইসি শাহান আরা বেগমের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে চরমোনাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবীতে মানববন্ধন করেন ইশা ছাত্র আন্দোলন চরমোনাই শাখা বিসিজি স্টেশান বরিশাল উদ্ধার করলো গাঁজা
শিক্ষকদের কাছে ঘুষ দাবি, তোপের মুখে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা!

শিক্ষকদের কাছে ঘুষ দাবি, তোপের মুখে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা!

নিজস্ব প্রতিবেদক  :: রংপুর বিভাগের লালমনিরহাটের পাটগ্রামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন ১৩তম গ্রেডে উন্নীত করতে ঘুষ দাবির অভিযোগ উঠেছে উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে। আজ (মঙ্গলবার ৪ মে) এ নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন শিক্ষকরা। এসময় উত্তেজিত শিক্ষকদের তোপের মুখে পড়েন হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম। তার কার্যালয়ে তালা লাগানোর চেষ্টা করেন শিক্ষকরা। বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা ও শিক্ষকদের মধ্যে হাতাহাতির মত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

 

 

 

উত্তেজিত শিক্ষকরা বলেন, সরকার ঘোষিত ১৩ তম গ্রেডের হালনাগাদ তথ্য পূরণে সার্ভার সমস্যা দেখিয়ে মাসের পর মাস ফাইল আটকিয়ে রাখা হয়। প্রতিটি ফাইলে হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম।

 

 

এছাড়া হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলার নিত্যনতুন নিয়মকানুন শেখান। এদিকে জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় এপ্রিল মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস পাওয়া প্রায় অনিশ্চিততা দেখা দিয়েছে।

 

 

 

 

এরপর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ও ঘেরাও করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন শিক্ষকরা। পরে ঘুষ -দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধে স্লোগান দিতে দিতে পাটগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে যান বিক্ষুব্ধ শিক্ষকরা। তাঁরা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের ২০ ফেব্রুয়ারি সহকারী শিক্ষকদের দাবি মেনে নিয়ে ১৫ তম গ্রেডের পরিবর্তে ১৩ তম গ্রেড দিয়েছেন। তবে, বেতন উন্নীতকরণের সফটওয়্যার আইবাস প্লাস প্লাসে তথ্য হালনাগাদ করা হয়নি। শিক্ষকরা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কার্যালয়ে কাগজপত্র জমা দিয়েছেন। ফাইলপত্র হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়ে ফরওয়ার্ড করেন শিক্ষা কর্মকর্তা।

 

 

বিস্তারিত আসছে….

 

 

 

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





আমাদের ভিজিটর

  • 69,510 জন ভিজিট করেছেন
© All rights reserved © 2019 ajkercrimetimes.com

Design and Developed By Sarjan Faraby