ঢাকামঙ্গলবার , ৭ নভেম্বর ২০২৩

ভিসির মেয়াদ শেষ হওয়ায় ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের মিষ্টি বিতরণ

ক্রাইম টাইমস রিপোর্ট
নভেম্বর ৭, ২০২৩ ২:৩৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সংবাদটি শেয়ার করুন....

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ভিসির মেয়াদ শেষ হওয়ায় ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের মিষ্টি বিতরণ

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদে মো. ছাদেকুল আরেফিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় তার বিদায়ে ক্যাম্পাসে মিষ্টি বিতরণ করেছেন শিক্ষার্থীরা।
সোমবার (০৬ নভেম্বর) দুপুরের পরে তাদের মধ্যে মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থী অমিত হাসান রক্তিম।
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভুঁইয়া বলেন, শিক্ষার্থীরা মিষ্টি বিতরণ করেছে এ রকম একটি খবর শুনেছি। কি কারণে করেছে সেটা আমি জানি না।এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করার নেই।
তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা হয় কোনো কারণে তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

ট্রেজারার আরও জানান, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি চার বছরে জন্য এসেছিলেন। নতুন করে মেয়াদ না বাড়ানোয় সোমবার তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেছেন।

শিক্ষার্থী অমিত হাসান রক্তিম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ছাদেকুল আরেফিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার খুশিতে শিক্ষার্থীরা দুই দফায় মিষ্টি বিতরণ করেছেন। ভিসি হিসেবে তার কর্মকাণ্ডে কেউ খুশি হননি। তাই সবাই মিষ্টি বিতরণের মাধ্যমে সেই বিষয়টি প্রকাশ করেছেন। দুই দফায় ৭০০ মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

মিষ্টি বিতরণকালে মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী সালাহ উদ্দিন বলেন, বিদায়ী ভিসির কাছে কেউ কোনো দাবি নিয়ে গেলে তা সমাধানে তিনি কোনো উদ্যোগ নিতেন না।

উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আনোয়ার হোসেন বলেন, বিদায়ী ভিসি স্থানীয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম নষ্ট করেছেন। এ কারণে তার বিদায় বেলায় কোনো শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ফুল নিতে পারেননি তিনি।

ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী ইরাজ রব্বানী বলেন, নানা সংকটে জর্জরিত বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এই উপাচার্যর আমলে উন্নতির চেয়ে অবনতিই হয়েছে বেশি। গত চার বছরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো উন্নয়ন হয়নি। তার প্রস্থানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে মিষ্টি বিতরণ করেছেন।

ড. ছাদেকুল আরেফিন উপাচার্য হিসেবে নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি হয় ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বর। তিনি ভিসি হিসেবে নিয়োগ পেয়ে যোগদান করেছিলেন ৬ নভেম্বর। তার চার বছর মেয়াদ শেষ হওয়ায় ৬ নভেম্বর ক্যাম্পাস থেকে বিদায় নেওয়ার খবরটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে নিশ্চিত করা হয়। এ খবরে উল্লাস প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। উপাচার্যের বিদায়ে নিয়ে শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন মন্তব্য লিখে পোস্টও করেছেন।